চিত্রশিল্পী সৈয়দ শামসুল হক

মূলত লেখক হিসেবেই খ্যাতির উৎকর্ষ তার। সাহিত্যের সব শাখায় সার্থকতার সঙ্গে বিচরণের কারণে সব্যসাচী হিসেবেও সমধিক পরিচিত। কিন্তু শিল্পের বিভিন্ন শাখার প্রতি তার অনুরাগ অজানা নয়। চলচ্চিত্র থেকে চিত্রকলাতেও মনোনিবেশ করেছেন বিভিন্ন সময়ে। কবি, গল্পকার, গীতিকার পরিচয়ের পাশাপাশি চিত্রনাট্যকার সৈয়দ শামসুল হকের পরিচয় জ্ঞাত হলেও চিত্রকর শামসুল হক অদেখা ছিলেন সাধারণের। এবার সেই অভাবও পূরণ হলো।
সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের শিল্প ও সাহিত্যকর্ম নিয়ে বেঙ্গল ফাউন্ডেশন আয়োজন করেছে ‘চিত্রের দিব্যরথ’ শীর্ষক চিত্রপ্রদর্শনী। গত ২৩ মার্চ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় ডেইলি স্টার-বেঙ্গল আর্টস প্রিসিঙ্কটে উদ্বোধন করা হয়েছে প্রদর্শনীর। এ অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশ বরেণ্য চিত্রশিল্পী হাশেম খান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চিত্রশিল্পী হাশেম খান জানান, এ প্রদর্শনীর মাধ্যমে তিনি সৈয়দ শামসুল হককে নতুনভাবে আবিষ্কার করেছেন। সৈয়দ হকের লেখক সত্ত্বার বাইরেও যে নানবিধ শিল্প সত্ত্বা আছে তা প্রথমবারের মতো অনুধাবন করেছেন তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান জনাব আবুল খায়ের। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক লুভা নাহিদ চৌধুরী। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দ শামসুল হকের স্ত্রী, কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক।

সাহিত্যের পাশাপাশি সৈয়দ হকের শিল্পের অন্যান্য শাখায় পদচারণা এবং ব্যক্তি হিসেবে তার বহুমাত্রিকতা উন্মোচিত করা এ প্রদর্শনী আয়োজনের অন্যতম উদ্দেশ্যে বলে জানান আয়োজকরা। তাছাড়া তার সৃষ্ট কবিতার সঙ্গে শিল্পকর্মের যে সংযোগ তা ভিজ্যুয়াল এবং লিখিত দুই ভাবেই উঠে এসেছে। সেজন্য চিত্রকর্মের পাশাপাশি এই প্রদর্শনীতে টেক্সট হিসেবে কবিতা, কথাশিল্পীর নিজ হাতে নির্মিত ভাষ্কর্য এবং অনূদিত কবিতাও স্থান পেয়েছে এখানে। অনূদিত কবিতাগুলো সৈয়দ হকের অপ্রকাশিত ডায়েরী থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রদর্শনীর শিল্পকর্মসমূহ লেখকের পারিবারিক সংগ্রহে ছিলো। এতে মোট ৪৫টি চিত্রকর্ম আছে।

সৈয়দ হক জীবনের শেষ সময়ে হাসপাতালে কিছু কবিতা লিখেছিলেন। এসব কবিতাও প্রদর্শনীতে অন্তর্ভূক্ত আছে। কবির পরিবার এবং বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এ প্রদর্শনীতে আরও আছে কবির স্বরচিত কবিতা আবৃত্তির ভিডিও।

প্রদর্শনীটি সবার জন্য উন্মুক্ত এবং এটি ৫ এপ্রিল বৃহস্পতিবার, প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।