চিত্রকর্মে নারী জীবনের জয়গান

গত শুক্রবার দশ দিনব্যাপী এক চিত্র প্রদর্শনী শুরু হয়েছে অবিন্তা গ্যালারি অব ফাইন আর্টসে। দলগত এ প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত শার্লটা স্ক্লাইটার, ইত্তেফাক-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক তাসমিমা হোসেন ও স্বনামধন্য শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার। উদ্বোধনী পর্বে সভাপতিত্ব করেন অবিন্তা গ্যালারি অব ফাইন আর্টসের চেয়ারপার্সন নীলু রওশন মোর্শেদ ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন নিসার হোসেন।

প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে ১১ জন নারী চিত্রকরের কাজ। চিত্রকর্মের বিষয়বস্তুও নারীজীবন ঘিরে। মেয়েদের মনের অবদমিত কথাই যেন ফুটে উঠেছে ক্যানভাসে। শুধু তাই নয় নারীদের সামাজিক অবস্থানও চিত্রিত হয়েছে এসব ক্যানভাসে। বাংলাদেশের শিল্পীদের ক্যানভাসে যখন মেয়েদের কষ্ট, স্বপ্ন, হতাশা এবং প্রতিবাদ ফুটে উঠেছে তখন ভারতের শিল্পী মাহজাবীন ইমাম মজুমদারের ছবিতে দক্ষিণ কাশ্মীরের এক কিশোরীর মর্মন্তুদ বর্ণনা।

উদ্বোধন পর্বে শিল্পী মুস্তফা মনোয়ার বলেন, সমাজে নারীরা যে অবহেলার মাঝে রয়েছেন নারীদের ছবিতে সে কথা স্পষ্ট প্রতিফলিত হয়েছে। ছবিগুলো দেখলে মন খারাপ হয়, মন বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। সে জন্য প্রদর্শনীর ছবিগুলো হয়ে উঠেছে বক্তব্যনির্ভর। নারী-পুরুষের বিভক্তি দূর হয়ে মানুষ যেন সত্যিকারের মানুষ হয়ে ওঠে- এ প্রদর্শনীতে সে প্রত্যাশা জানাই।

নীলু রওশন মোর্শেদ এসময় বলেন, অবিন্তা গ্যালারি এ প্রদর্শনীর আয়োজন করতে পেরে আনন্দিত। ‘সাঁকো’র সঙ্গে এ গ্যালারি সম্পর্ক অনেক দিনের। আমার প্রত্যাশা আগামীতেও আমরা ভালো প্রদর্শনী শিল্পরসিকদের উপহার দিতে পারবো।

প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়া শিল্পীরা হলেন- ফারিহা জেবা, ফরিদা জামান, ফারজানা ইসলাম মিল্কি, কনক চাঁপা চাকমা, কুহু প্লামন্ডন, নাঈমা হক, রেবেকা সুলতানা মলি ও সুলেখা চৌধুরী। এছাড়াও প্রদর্শনীতে তিনজন অতিথি শিল্পী অংশ নিয়েছেন এরা হলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত পানপিমন সুওয়ানপংসে, ভারতের মাহজাবীন ইমাম মজুমদার ও অস্ট্রেলিয়ার শারমিন হক।
মোট ১১ জন শিল্পীর ৫০টি চিত্রকর্ম স্থান পেযেছে এ প্রদর্শনীতে। চলবে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত। এ জে হাইটস ৭২/১/ডি, প্রগতি সরণি, উত্তরা বাড্ডা- এই ঠিকানায় প্রদর্শনীটি প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকবে।