প্রকাশিত হলো রবীন্দ্রসংগীতের দুটি অ্যালবাম

আনন্দধারা বহিছে ভুবনে- রবীঠাকুরের বাণীর সুরেলা পরিবেশন করছিলেন শিমু দে ও অভয়া দত্ত। নগর চরাচরে একঘেয়ে ছন্দে যখন বর্ষণবারি ঝরছিলো তখন ছায়ানট মিলনায়তন ভেসে যাচ্ছিলো শিল্পীদ্বয়ের সুরের ধারায়। কেননা একটু আগেই আনুষ্ঠানিকভাবে মোড়ক উন্মোচিত হয়েছে দুটি সংগীত অ্যালবামের। নির্বাচিত রবীন্দ্রসংগীতের দুটি ভিন্ন সংকলনে স্থান পেয়েছে ৮টি করে মোট ১৬টি গান। ধানমন্ডির ছায়ানট মিলনায়তনে আজ, ৩ জুলাই সন্ধ্যায়, প্রকাশিত হয় অ্যালবাম দুটি। শিমু দে’র কণ্ঠে তোমায় আমায় মিলে এবং অভয়া দত্তের কণ্ঠে আলোক মালার সাজে অ্যালবাম দুটির মোড়ক উন্মোচন করলেন লেখক ও সাংবাদিক আনিসুল হক এবং ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য ড. ফকরুল আলম। মোড়ক উন্মোচন শেষে শিমু দে ও অভয়া দত্ত দ্বৈত ও একক গান পরিবেশন করেন।

দ্বৈতকন্ঠের গান দিয়ে শিল্পীদ্বয় অনুষ্ঠান শুরু করেন। এরপর অভয়া দত্ত ‘কী সুর বাজে’, ‘আমার মনের কোণের বাইরে’ এবং ‘কোথা হতে বাজে প্রেমবেদনা রে’ পরপর তিনটি গান করলেন। শিমু দে গেয়ে শোনান, ‘আমি তোমায় যত’, ‘কেন আমায় পাগল করে যাস’ এবং ‘তব প্রেমসুধারসে’ গান তিনটি। এর পর আবারও তিনটি গান শোনালেন অভয়া ‘দূরদেশী সেই রাখাল ছেলে’, ‘যখন এসেছিলে অন্ধকারে’ এবং ‘বজাও রে মোহন বাঁশি’। এ পর্যায়ে শিমু দে গাইলেন ‘তব প্রেম সুধা রসে’, ‘কে বসিলে আজি’ এবং ‘মাঝে মাঝে তব দেখা পাই’ গানগুলি। ‘ধরণীর গগনের মিলনের ছন্দে’ গানটির দ্বৈত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়। যন্ত্রানুষঙ্গে ছিলেন তবলায় ইফতেখার আলম প্রধান, এসরাজে অসিত বিশ্বাস এবং কিবোর্ডে রূপতনু রুপু। এছাড়া শিল্পীদ্বয়ের সাথে হারমোনিয়ামে সহযোগিতা করেন হিমাদ্রী শেখর ও শারমিন সাথী ইসলাম।

অ্যালবাম ও শিল্পী শিমু দে সম্পর্কে কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক মন্তব্য করেন, ‘এই অ্যালবামে রবীন্দ্রনাথের প্রেমের গান আছে, পূজার গান আছে, রবীন্দ্রসংগীতে প্রেম আর পূজা যে মিলেমিশে থাকে, তাও আমরা জানি। শিমু দে-র এই গানগুলোয় বাণী আর সুর একাকার; সংগীত আয়োজন আর শিল্পীর পরিবেশনা মিলেমিশে গড়ে উঠেছে এক অপূর্ব শিল্পসৃষ্টি। গানের সঙ্গে মিশে গেছেন শিল্পী, তাঁর সঙ্গে মিলেমিশে যাবেন শ্রোতারা।’

তোমায় আমায় মিলে অ্যালবামটিতে সংকলিত গানের তালিকা: ১. পুরানো জানিয়া চেয়ো না, ২. কেন আমারে পাগল করে যাস, ৩. মাঝে মাঝে তব দেখা পাই, ৪. কে বসিলে আজি হৃদয়াসনে, ৫. আমি তোমায় যত শুনিয়েছিলেম গান, ৬. যাবার বেলা শেষ কথাটি যাও, ৭. ফুল বলে, ধন্য আমি মাটির ’পরে, ৮. তোমার হল শুরু, আমার হল সারা। এবং আলোক মালার সাজে অ্যালবামটিতে সংকলিত গানের তালিকা: ১. আমি যে আর সইতে পারি নে, ২. বাজিল, কাহার বীণা মধুর স্বরে, ৩. আজি এ নিরালা কুঞ্জে, ৪. বাজাও রে মোহন বাঁশি, ৫. ওগো কিশোর, আজি তোমার দ্বারে, ৬. দূরদেশী সেই রাখাল ছেলে, ৭. দিনশেষের রাঙা মুকুল জাগল চিতে, ৮. আমার একটি কথা বাঁশি জানে।

দেশের বিভিন্ন স্থানেই পাওয়া যাবে অ্যালবামদুটি। ঢাকা থেকে কেনা যাবে আজিজ সুপার মার্কেটে সুরের মেলা, সুর কল্লোল, প্যাপিরাস, পাঠক সমাবেশ; নিউমার্কেট-সংলগ্ন গানের ডালি; এলিফ্যান্ট রোডে গানের ভুবন; বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্সের গীতাঞ্জলি; বনানী ও ধানমন্ডি অরণ্য ক্রাফট্স, বেঙ্গল বই; ধানমন্ডি রাপা প্লাজা হলিউড; বেইলি রোডে সাগর পাবলিশার্স; গুলশান-১ কুমুদিনী হ্যান্ডিক্রাফট্স; চট্টগ্রাম বাতিঘর ও লালখান বাজারে রাগেশ্রী; সিলেট বইপত্র জিন্দাবাজার ও অন্যান্য বিক্রয়কেন্দ্র থেকে।