প্রজন্মান্তরে উচ্চাঙ্গসংগীত শিক্ষা

সাতটি রাগ আর ২২টি শ্রুতির সমন্বয়ে সৃষ্টি হয় সুর। সংগীতের সেই সুরের ধারায় যোগ দিতে এসেছিল ৭৫জন সঙ্গীত বিদ্যার্থী। সাতক্ষীরা শিল্পকলা একাডেমিতে ১০ দিনব্যাপী সফল প্রশিক্ষণ শেষে গত ১৭ আগস্ট তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয় সনদ। সেই সঙ্গে সুর-আড্ডায় মেতে ওঠেন আমন্ত্রিত অতিথিসহ প্রশিক্ষণার্থীরা। দুই বাংলার শিল্পী ও সংস্কৃতিসেবীর অংশগ্রহণে সাতক্ষীরা শিল্পকলা একাডেমি পরিণত হয়েছিল দুই বাংলার মিলনমেলায়।

‘আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে বিরাজ সত্যসুন্দর’ এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে অনুষ্ঠিত হয় এই প্রশিক্ষণ। দক্ষিণ জনপদের প্রখ্যাত সঙ্গীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘বর্ণমালা একাডেমি’ এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করে। আয়োজনে সহায়তা করে ভারতের ‘সাকিত সঙ্গীত গুরুকুল’। প্রশিক্ষণ শেষে দুই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পৃথক সনদপত্র প্রদান করা হয়।

এই সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে শামিমা পারভিন রত্নার সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিনসহ অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

সুরের আবেদন চিরন্তন। তাই শুদ্ধতায় হৃদ্ধ অন্তরাত্মাকে বিকশিত রূপে গড়ে তোলার জন্য সুরের সাধক হবার আহ্বান জানান বক্তারা।