যারা থাকছেন এবারের বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসবে

দর্শক উপস্থিতি বিচারে পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসবের মর্যাদা পেয়েছে বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব। এ উৎসবে লাখো দর্শককে সুরের বাঁধনে আবদ্ধ করেন উপমহাদেশের শ্রেষ্ঠ সংগীতগুরু ও পণ্ডিতেরা। সেই সঙ্গে মঞ্চ আলোকিত করেন দেশি শিল্পীবৃন্দও।

প্রতিবারই নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়া এ উৎসবে নিয়মিত সংগীত পরিবেশন করে আসছেন ভুবনবিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পীরা। ২০১২ সাল থেকে শুরু হওয়া এ উৎসবের মঞ্চ আলোকিত করে চলেছেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত সব শিল্পীবৃন্দ।

এবছর ৬ষ্ঠ বারের মতো আয়োজিত হচ্ছে বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব। উপমহাদেশের শাস্ত্রীয় সংগীত শিল্পীদের পাশাপাশি এবছর মঞ্চ মাতাবেন পশ্চিমা ধ্রুপদী শিল্পীরা। উৎসবের প্রথম দিন মঙ্গলবার ২৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় কাজাখস্থান থেকে আসা ৫৮ সদস্যের আস্তানা সিম্ফনি ফিলহারমনিক অর্কেস্ট্রার সঙ্গে গ্র্যামি-মনোনীত প্রখ্যাত বেহালা-শিল্পী পদ্মভূষণ ড. এল সুব্রামানিয়ম যুগল-বাদন পরিবেশিত হবে।

পাঁচদিনব্যাপী উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসবে খেয়াল পরিবেশন করবেন মেওয়াতি ঘরানার প্রবাদপ্রতিম শিল্পী পদ্মবিভূষণ পণ্ডিত যশরাজ, বিদুষী পদ্মা তলওয়ালকার; সেতার পরিবেশন করবেন বুধাদিত্য মুখার্জী, পণ্ডিত কুশল দাস, পূর্বায়ণ চট্টোপাধ্যায়, পণ্ডিত কৈবল্যকুমার গুরভ; সরোদ পরিবেশন করবেন পণ্ডিত তেজেন্দ্রনারায়ণ মজুমদার, পণ্ডিত দেবজ্যোতি বোস রাজরূপা চৌধুরী, আবীর হোসেন; মোহনবীণা পরিবেশন করবেন ১৯৯৩ সালে গ্র্যামিবিজয়ী পণ্ডিত বিশ্বমোহন ভট্ট, বেহালা বাজাবেন গ্র্যামি-মনোনীত বিদুষী কালা রামনাথ; ঘাটম পরিবেশন করবেন দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম গ্র্যামিবিজয়ী পদ্মভূষণ বিদ্বান ভিক্কু বিনায়করাম; নৃত্য পরিবেশন করবেন বিশিষ্ট ওডিশি নৃত্যশিল্পী সুজাতা মহাপাত্র, নৃত্যদল অদিতি মঙ্গলদাস ডান্স কোম্পানি; চেলো পরিবেশন করবেন সাসকিয়া রাও; বেহালা বাজাবেন ড. মাইসোর মঞ্জুনাথ, বাঁশি পরিবেশন করবেন পণ্ডিত রনু মজুমদার, রাকেশ চৌরাসিয়া।

এছাড়াও আয়োজনের মধ্যমণি হিসেবে উৎসব আলোকিত করবেন পণ্ডিত শিবকুমার শর্মা (সন্তুর), পণ্ডিত হরিপ্রসাদ চৌরাসিয়া (বাঁশি), পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তী (খেয়াল), ওস্তাদ রশিদ খান (খেয়াল), পণ্ডিত উলহাস কশলকর (খেয়াল), পণ্ডিত উদয় ভাওয়ালকর (ধ্রুপদ), ওস্তাদ শাহিদ পারভেজ খান প্রমুখ।

এঁদের সঙ্গে তবলায় সংগত করবেন পণ্ডিত অভিজিৎ ব্যানার্জি, পণ্ডিত শুভঙ্কর ব্যানার্জি, পণ্ডিত যোগেশ সামসিসহ আরও অনেকে।

বিদেশি শিল্পীরা ছাড়াও বাংলাদেশের পাঁচজন প্রতিভাবান নবীন নৃত্যশিল্পী সুইটি দাশ, অমিত চৌধুরী, স্নাতা শাহরিন, সুদেষ্ণা শ্যামাপ্রভা ও মেহরাজ হক তুষারসহ সরকারি সংগীত মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীবৃন্দ। পরম্পরা সংগীতালয়ের ছাত্রছাত্রীবৃন্দ পরিবেশন করবেন দলীয় সেতার, তবলা ও সরোদবাদন; খেয়াল পরিবেশন করবেন সুপ্রিয়া দাস; ধ্রুপদ পরিবেশন করবেন অভিজিৎ কুণ্ডু। স্বনামধন্য শিল্পী ফিরোজ খান পরিবেশন করবেন সেতারে এবং গাজী আবদুল হাকিম বাঁশি পরিবেশন করবেন এবারের উৎসবে।